কে ছিলেন হজরত সকিনা?

এস, এ, এ

হজরত সকিনা এবং হজরত রুকাইয়া উক্ত নাম দুটি নিয়ে ইতিহাসে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে যে, ইমাম হুসাইন (আ.)’এর হজরত সকিনা এবং হজরত রুকাইয়া নামের কোন মেয়ে ছিল? যিনি তিন অথবা চার বছর বয়সে কারবালাতে উপস্থিত ছিলেন এবং দামেস্কে শাহাদত বরণ করেন?

ইতিহাসের গ্রন্থ সমূহে উক্ত বিষয় সম্পর্কে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়নি। এমনকি উক্ত বিষয় নিয়ে প্রথম আলোচনাকারি এমাদ উদ্দিন তাবারিও বিষয়টিকে অস্পষ্টভাবে বর্ণনা করেছেন।

আবার তাবাকাতে কুবরা নামক গ্রন্থে উল্লেখ করা হয়েছে যে, ইমাম হুসাইন (আ.)’এর উক্ত নামের মেয়েটি প্রাপ্ত বয়স্কা ছিলেন এমনকি তাঁর সন্তানাদিও ছিল। উক্ত বিষয়টি জানার পরে আমরা সকলেই আশ্চর্যিত হয়ে যায় কি তাই না?

যদিও ইমাম হুসাইন (আ.)’এ ছোট কন্যা যাকে আমরা রুকাইয়া, ফাতেমা সুগরা সহ বিভিন্ন নামে চিনি কিন্তু অনেক ঐতিহাসিকগণ তাদের স্বিয় গ্রন্থে তাঁর নামকে উল্লেখ করেনি। আবার কিছু ইতিহাস গ্রন্থে তাঁর জীবনি, কারবালাতে তার উপস্থিতি এমনকি শামে তাঁর হৃদয়বিদারক শাহাদতের ঘটনাও বর্ণনা করা হয়েছে যেমন:

যখন হজরত জয়নাব (সা.আ.) কুফাতে তাঁর ভাই ইমাম হুসাইন (আ.)’এর কাটা মাথার দিকে দৃষ্টিপাত করতেন তখন তিনি এভাবে শোকগাঁথা পাঠ করে বলতেন: হে আমার ভাই! তুমি আামদের ছোট ফাতেমার সাথে কথা বল যেন সে মারা না যায়।

ইমাম হুসাইন (আ.) তাঁর জিবনের অন্তিম মূহুর্তে (সিমার তার গলা কাটার সময়) বলেন: হে জয়নাব, সকিনা এবং আমার সন্তানরা! এখন কে তোমাদের রক্ষণাবেক্ষণ করবে? হে রুকাইয়া! উম্মে কুলসুম আমি তোমাদেরকে আল্লাহর কাছে আমানত স্বরূপ ছেড়ে যাচ্ছি কেননা আমার নির্ধারিত সময় কয়েক মূহুর্তের মধ্যেই শেষ হয়ে যাবে।

শেইখ মুফিদ (রহ.) লিখেছেন যে, কারবালাতে ইমাম হুসাইন (আ.)’এর ছোট কন্যা উপস্থিতি ছিল যার মায়ের নাম ছিল ‘রোবাব’।

শেইখ তাবারসি বর্ণনা করেছেন: কারবালাতে আশুরার দিন ইমাম হুসাইন (আ.)’এর কন্যা সকিনার বয়স ছিল ১০ বছর।

এছাড়া বিভিন্ন রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে যে ইমাম হুসাইন (আ.)’এর আরেকটি কন্যার নাম ছিল সকিনা যিনি কারবালার ঘটনার পূর্বেই বিবাহ যোগ্য ছিলেন।

উপরে উল্লেখিত ইতিহাস এবং রেওয়ায়েত থেকে যে, বিষয়টি স্পষ্ট হয় তা হচ্ছে যে ইমাম হুসাইন (আ.)’এর  একটি কন্যা ছিল যার নাম ছিল সকিনা এবং তিনি শামে শাহাদত বরণ করেন। আর ইমাম হুসাইন (আ.)’এর আরেক কন্যা যার নাম ছিল সকিনা তিনি তাঁর বাবার শাহাদতের পরেও জিবিত ছিলেন।

বিভিন্ন ঐতিহাসিক এবং শাহাদতের ঘটনা বর্ণনাকারিগণ ইমাম হুসাইন (আ.)’এর শাহাদতের ঘটনা বর্ণনা করতে গিয়ে উল্লেখ করেছেন যে, ইমাম হুসাইন (আ.)’এর সকিনা ও ফাতেমা নামের একটি কন্যা ছিল। (আল ইরশাদ, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ১৩৫, মানাকেবে আলে আবি তালিব, খন্ড ৪, পৃষ্ঠা ৭৭, আলামুল ওয়ারা, খন্ড ১, পৃষ্ঠা ৪৭৮, নাসাবে কুরাইশ, পৃষ্ঠা ৫৯, ইনসাবুল আশরাফ, খন্ড ৩, পৃষ্ঠা ১২৮৮, তাযকেরাতুল খাওয়াস, পৃষ্ঠা ২৪৯)

অনেক ঐতিহাসিকগণ আবার জয়নাব নামটিও উল্লেখ করেছেন। (কাশফুল গুম্মা ফি মারেফাতুল আয়েম্মা, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ৩৮)

অনেকে আবার তাদের গ্রন্থে ইমাম হুসাইন (আ.)’এর ছোট কন্যা যে শামে শাহাদত বরণ করে তাঁর কথাও উল্লেখ করেছেন। (নাফসুল মাহুমুম, পৃষ্ঠা ৪১৫- ৪১৬, আল ইকাদ, পৃষ্ঠা ১৭৯, মাআলিউস সিবতাইন, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ১৭০, মুনতাহিউল আমাল, খন্ড ১, পৃষ্ঠা ৮০৭, তারিখে তাবারি, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ১৭৯)

বিভিন্ন রেওয়ায়েত এবং ইতিহাসে উল্লেখ করা হয়েছে যে, যখন হজরত জয়নাব (সা.আ.) কুফাতে ইমাম হুসাইন (আ.)’এর মাথার প্রতি দৃষ্টিপাত করে বলেন: হে ভাই! আপনি আপনার ছোট ফাতেমার সাথে কথা বলুন তানাহলে সে হয়তো মারাই যাবে। (বিহারুল আনওয়ার, খন্ড ৪৫, পৃষ্ঠা ১১৫, ইনাবিউল মোয়াদ্দাত, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ৪২১)

হজরত জয়নাব (সা.আ.)’এর উক্ত কথা দ্বারা স্পষ্ট হয় যে, ইমাম হুসাইন (আ.)’এর ছোট একটি কন্যা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। আর এ কারণেই যখন আমরা শিয়া ও সুন্নি ইতিহাসের গ্রন্থ সমূহের প্রতি দৃষ্টিপাত করি তখন দেখতে পাই যে, কারবালার ঘটনায় ইমাম হুসাইন (আ.)’এর ছোট কন্যা হজরত সকিনার কথা উল্লেখ করা হয়েছে যার মায়ের নাম ছিল রোবাব। (আল ইরশাদ, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ৩৭)

শেইখ তাবারসি উক্ত ঘটনাটি বর্ণনা করার সময় উল্লেখ করেছেন যে, কারবালার মর্মান্তিক ঘটনার সময় সকিনা বিনতে হুসাইন’এর বয়স ছিল ১০ বছর।  (মাকতালে হুসাইন, পৃষ্ঠা ৩৯৭)

যাহাবি তার ‘তারিখে ইসলাম’ নামক গ্রন্থে ইমাম হুসাইন (আ.)’এর কন্যা হজরত সকিনা’এর কথা উল্লেখ করেছেন। (তারিখে ইসলাম, খন্ড ৭, পৃষ্ঠা ৩৭১)

তবে ঐতিহাসিকদের মধ্যে হজরত সকিনার বয়স, বিবাহ এবং কারবালাতে ইমাম হুসাইন (আ.)’এর সকিনা নামের আরো কোন কন্যা সন্তান উপস্থিত ছিল কিনা এ সম্পর্কেও বিভিন্ন মতামত বর্ণিত হয়েছে। (আল ইরশাদ, খন্ড ২, পৃষ্ঠা ২২)

উপরে উল্লেখিত আলোচনা থেকে স্পষ্ট হয় যে, শামে  সকিনা নামের ইমাম হুসাইন (আ.)’এর একটি কন্যা (রুকাইয়া অথবা ফাতেমা ওরফে সকিনা) শাহাদত বরণ করেন। আর যদি ইতিহাসে ইমাম হুসাইন (আ.)’এর শাহাদতের পরে অনেকদিন যাবৎ কোন সকিনা জিবিত ছিলেন বলে উল্লেখ করা হয়ে থাকে। তাহলে তিনি হচ্ছেন অন্য কোন সকিনা যার বিবাহের কথা ইতিহাসে উল্লেখ করা হয়েছে।

কীওয়ার্ড: