মুবাহিলাতে রাসূল আকরাম (সা.)-এর সঙ্গী

প্রচুর সংখ্যক হাদীস বর্ণনাকারী তাদের হাদীস গ্রন্থে এবং ঐতিহাসিক ও মুফাসসিরগন তাদের ইতিহাস ও তাফসীরের কিতাবসমূহে সুস্পষ্ট ভাবে বর্ণনা করেছেন যে, হযরত ফাতেমা আয যাহরা (আ.), নাজরানের খৃষ্টান পাদ্রীদের সাথে নবী (সা.)-এর চ্যালেঞ্জের আহবানে অংশগ্রহণকারী আহলে বাইতের পাঁচ সদস্যের মধ্যে অন্যতম। এ বিষয়টি তাদের উচ্চ মর্যাদা ছাড়াও এমন একটি শক্তিশালী প্রমাণ যার মাধ্যমে পরিষ্কার হয়ে যায় যে,“ নবী (সা.)-এর নিষ্পাপ আহলে বাইত হযরত আলী, হযরত ফাতেমা,ইমাম হাসান ও ইমাম হুসাইন বৈ কেউ নন। তাঁর অন্যান্য আত্মীয়-স্বজন ও স্ত্রীবর্গ এ বিশেষ মর্যাদার মধ্যে গণ্য নন। নিম্নে সংক্ষিপ্তাকারে মুবাহিলার ঘটনা বর্ণনা করা হলো :

একদা নাজরানের কতিপয় খৃষ্টান পাদ্রী হযরত মুহাম্মদ (সা.) খেদমতে এসে হযরত ঈসা (আ.)-এর সম্পর্কে আলাপ আলোচনা করলেন। হযরত মুহাম্মদ (সা.) তাদের উদ্দেশ্যে নিম্নের এ আয়াতটি পাঠ করেন :

إِنَّ مَثَلَ عِيْسَى عِنْدَ اللهِ كَمَثَلِ آدَمَ خَلَقَهُ مِنْ تُرَابٍ

অর্থাৎ“ নিশ্চয়ই আল্লাহর নিকট ঈসার উদাহরণ আদমের ন্যায় যেমনি করে তিনি তাকে ( আদমকে) মাটি থেকে সৃষ্টি করেছেন। ” (আলে ইমরান : ৫৯)

তারপরও উপস্থিত খৃষ্টান পাদ্রীরা সন্তুষ্ট হলো না। বরং তারা উক্ত আয়াতের প্রতিবাদ করে বসে। তখন মুবাহিলার আয়াত অবতীর্ণ হয়। সে আয়াতে আল্লাহ্ বলেন :

فَمَنْ حَآجَّكَ فِيْهِ مِنْ بَعْدِ مَا جَآءَكَ مِنَ اْلْعِلْمِ فَقُلْ تَعَالَوْا نَدْعُ أَبْنَآءَنَا وَ أَبْنَآءَكُمْ وَ نِسَآءَنَا وَ نِسَآءَكُمْ وَ أَنْفُسَنَا وَ أَنْفُسَكُمْ ثُمَّ نَبْتَهِلْ فَنَجْعَلْلَّعْنَتَ اللهِ عَلَى اْلْكَاذِبِيْنَ

অর্থাৎ ‚যারা তোমার কাছে ( মাসিহ্ সম্পর্কে) অকাট্য জ্ঞান ও দলীল আসার পরও তোমার সাথে তর্কে লিপ্ত হয় তুমি তাদেরকে বলে দাও,আস! আমরা আমাদের সন্তানদের আহবান করি আর তোমরাও তোমাদের সন্তানদের আহবান জানাও, আমরা আমাদের নারীদের ডেকে আনি আর তোমরাও তাই কর এবং আমরা আমাদেরকে ডেকে আনি আর তোমরাও তোমাদেরকে ডেকে আন। অতঃপর এসো আমরা মুবাহিলা (চ্যালেঞ্জ) করি এবং মিথ্যাবাদীদের উপর আল্লাহর অভিশাপ বর্ষণ করি।“ ( আলে ইমরান : ৬১)

মুবাহিলার অর্থ হচ্ছে : ‚কোন বিষয়ে বিবাদমান ও শত্রুভাবাপন্ন দু’ পক্ষ পরস্পরের উপর অভিশাপ বর্ষন করবে আর তারা আল্লাহর কাছে বাতিল পক্ষের উপর আযাব ও অভিশাপ কামনা করবে। এ কাজ শুধুমাত্র আল্লাহর মনোনীত পয়গম্বরদের দ্বারাই সম্ভব। কেননা তারাই আল্লাহর সাথে সত্যিকার সম্পর্ক স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছেন।“

নাজরানের খৃষ্টানরা প্রথমে সম্মত হয়েছিল যে তারা পরের দিন মুবাহিলাতে অংশগ্রহণ করবে কিন্তু রাসূল (সা.)-এর কাছ থেকে ফিরে গিয়ে তারা নিজেদের মধ্যে এ নিয়ে আলোচনায় লিপ্ত হয়। ইতোমধ্যে খৃষ্টান পাদ্রী তাদেরকে উদ্দেশ্য করে বললেন : ‚যদি মুহাম্মদ আগামীকাল তাঁর সন্তান ও আহলে বাইতের সদস্যদের নিয়ে আসে তাহলে তাঁর সঙ্গে মুবাহিলা হতে বিরত থাকবে আর যদি তার সঙ্গী-সাথি ও সাহাবীদের নিয়ে আসেন তাহলে তাঁর সাথে মুবাহিলায় কোন আপত্তি নেই।“

তার পরের দিন যথারীতি হযরত মুহাম্মদ (সা.), আমিরুল মুমিনীন আলী (আ.), হযরত ফাতেমা আয যাহরা,ইমাম হাসান ও ইমাম হুসাইনকে সাথে নিয়ে মুবাহিলার উদ্দেশ্যে যথাস্থানে উপস্থিত হলেন। তিনি খৃষ্টানদের মুখোমুখি মাটির উপর বসে পড়েন। অতঃপর তিনি তাঁর আহলে বাইতকে বলেন : ‚আমি যখন দোয়া করবো তখন তোমরা তার শেষে আমিন বলবে।“ খৃষ্টানরা তাঁর প্রতিনিধি দলকে দেখেই ভীতসন্ত্রস্থ হয়ে গেল। খৃষ্টানরা তাঁর পদ্ধতি অপরাপর সত্যপন্থী নবী ও রাসূলদের পদ্ধতির অনুরূপ বলে স্বীকারোক্তি পেশ করলো। তারা নবী (সা.)-এর অনুরোধ জানালো যে,তিনি যেন মুবাহিলা পরিত্যাগ করে তাদের সাথে শান্তি চুক্তিতে সম্মতি হন। তারা শান্তি ও সন্ধির পক্ষে সম্মতি স্বরূপ কিছু অর্থ পরিশোধ করে ফিরে গেল।(মানাকিবে শাহরে আশুব,২য় খণ্ড,পৃ. ১৪২-১৪৪। কাশফুল গুম্মাহ্,১ম খণ্ড,পৃ. ৪২৫,৪২৬। মুনতাহাল আমাল,পৃ. ১১৪,১১৭,১৭৬,১৭৭। ফুসুলুল মুখতারা,শেখ মুফিদ,পৃ. ১৭। আর সহীহ মুসলিম,মুসনাদে আহ্মাদ বিন হাম্বাল এবং আবু নাঈম ইস্পাহানী রচিত“ ফি-মা নাযালা মিনাল কুরআন ফি আমিরুল মুমিনীন” গ্রন্থে,তাফসীরে কাশশাফ এবং আগানী আবুল ফারাজ ইস্পাহনী ও শিয়া-সুন্নী আলেমদের লিখিত অনেক গ্রন্থে এবং অধিকাংশ তাফসীরের কিতাবগুলোতে মুবাহিলার এ মর্যাদাপূর্ণ বিষয়ে আলোকপাত করা হয়েছে)

সূত্র: ইনটারনেট